যাত্রার সময় বমির প্রবণতা কমাতে যেসব নিয়ম মানবেন

ঈদযাত্রায় ভোগান্তি যতই থাকুক, নাড়ির টানে বাড়ির পানে ছুটে যান বহু মানুষ। যানজট কিংবা যানবাহনের জন্য অপেক্ষা ছাড়াও কিন্তু শারীরিক অসুবিধার কারণে কারও কারও যাত্রাপথের ভোগান্তি বাড়ে। যেমন বমির প্রবণতা। ভ্রমণের সময় অনেকেই ভোগেন এ সমস্যায়। তবে কিছু বিষয় খেয়াল রাখলে এ প্রবণতা অনেকটাই কমে আসে। জেনে রাখুন সেসবই—

যাত্রার সময় বমির প্রবণতা কমাতে যানবাহন ও যানবাহনের আসন নির্বাচন করতে হবে সতর্কতার সঙ্গে। সঙ্গে যাত্রার সময়ও নিজের প্রতি একটু যত্নশীল হতে হবে। যাত্রার আগে ও যাত্রাবিরতিতে কী খাচ্ছেন, সেটিও গুরুত্বপূর্ণ। কিছু ওষুধ আছে, যেসব সেবনে সমস্যা খানিকটা নিয়ন্ত্রণে থাকে। তবে সেই ওষুধ কখন সেবন করতে হবে, তা–ও জানা থাকা চাই। এসব বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছেন ঢাকার স্কয়ার হাসপাতাল লিমিটেডের মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. তাসনোভা মাহিন।

যানবাহন ও আসন
জানালার পাশের আসন নিতে চেষ্টা করুন।

শীতাতপনিয়ন্ত্রিত যানবাহন আবদ্ধ রাখতেই হয়। কারও কারও এ ধরনের বদ্ধ যানবাহনে বমির প্রবণতা বাড়ে। তাই তাঁদের জন্য সম্ভব হলে এমন যানবাহনের ব্যবস্থা করতে হবে, যেটির জানালা খোলা যায়। তবে সব ক্ষেত্রে সেটি সম্ভব না হলেও কিছুটা বাড়তি বাতাস প্রবাহের ব্যবস্থা করে দেখতে পারেন। ব্যাটারিচালিত ছোট ফ্যান রাখতে পারেন নিজের কাছে।

যানবাহনের সামনের দিকের আসনে বসতে চেষ্টা করুন। ট্রেনের ক্ষেত্রে গন্তব্য অভিমুখে বসার চেষ্টা করুন। উল্টা দিকে মুখ করে বসলে বমির প্রবণতা বাড়বে।

তবে নৌপথে ভ্রমণের সময় একেবারে সামনের দিকে না বসে মাঝামাঝি আসনে বসা ভালো। এ ক্ষেত্রে ওপর দিকের আসন এড়িয়ে চলুন।

নিজস্ব যানবাহনে যাতায়াত করলে যে এয়ার ফ্রেশনার ব্যবহার করছেন, সেটি যাতে তীব্র ধরনের না হয় সেদিকে খেয়াল রাখুন। সবচেয়ে ভালো হয় অতীত অভিজ্ঞতা থেকে সহনীয় এয়ার ফ্রেশনাল ব্যবহার করা।