অভিযানের ঠেলায় ১৬০ টাকার পেঁয়াজ বিক্রি হলো ১১০ টাকায়।

ভোলায় দুই দিনের ব্যবধানে প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ৮০ থেকে ৯০ টাকা। গতকাল শুক্রবার থেকেই পেঁয়াজের বাজার লাগামহীন হয়ে পড়ে। শুক্রবার সকালে যে পেঁয়াজ ছিল ৯০ থেকে ১০০ টাকা, মাত্র কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে বিকেলে সেই একই পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ১৪০ থেকে ১৫০ টাকায়।

আজ শনিবার (৯ ডিসেম্বর) সকাল থেকে খুচরা বাজারে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ১৭০ টাকা করে।

এ খবরে দুপুরের দিকে অভিযানে নামে ভোলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। তাদের অভিযানের খবরে খুচরা ও পাইকারি বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি শুরু হয় ১১০ টাকা করে।এমনকি ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মো. মাহমুদুল হাসান দোকানে দাঁড়িয়ে থেকে দোকানদারদের দিয়ে ১১০ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি করান। মাত্র কয়েক মিনিটের ব্যবধানে প্রতি কেজি পেঁয়াজে ৫০ থেকে ৬০ টাকা কমে যাওয়ায় ক্রেতারা লাইন দিয়ে পেঁয়াজ কেনার জন্য হুমরি খেয়ে পড়েন।

এ ছাড়া কম দামে কিনে বেশী দামে পেঁয়াজ বিক্রির দায়ে তিন ব্যবসা প্রতষ্ঠানকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করে ভোক্তা অধিদপ্তর।শনিবার দুপুরের দিকে ভোলার কাঁচা বাজার এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, খুচরা বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা বিক্রি করছেন ব্যবসায়ীরা। খুচরা বিক্রেতাদের কাছে বেশী দামে পেঁয়াজ বিক্রি করার কারণ জানতে চাইলে তারা জানান, আড়ত থেকে পাইকারি প্রতি কেজি পেঁয়াজ ১৪০ থেকে ১৪৫ টাকায় কিনে এনেছেন তারা। তাই তারাও বেশী দামে বিক্রি করছেন।

কাঁচা বাজার এলাকার খুচরা বিক্রেতা মো. মনির ও ভুট্টুসহ ৮-৯ জন ব্যবসায়ী জানান, ভরতের পেঁয়াজ রপ্তানিতের নিষেধাজ্ঞার খবরে গত দুই-তিন দিন ধরেই পেঁয়াজের দাম ঊর্ধ্বমুখী। আড়তদাররা তাদের বলেছেন- ভারতের পেঁয়াজ আসা বন্ধ হওয়ায় ঢাকার মোকামে পেঁয়াজের দাম বেশী। তাই তারাও দাম বেশী নিচ্ছেন। কিন্তু আড়তদারদের কাছে ভাউচার চাইলে তারা ভাউচার দিচ্ছেন না।

পেঁয়াজ কিনতে আসা স্কুলশিক্ষক মো. জামাল জানান, পরশু দিনও ভোলার বাজারে পেঁয়াজ ছিল কেজি ৭০ থেকে ৮০ টাকা।

কিন্তু এক দিনের ব্যবধানে সেটি আজকে ১৬০ থেকে ১৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।ভোলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মো. মাহমুদুল হাসান কালের কণ্ঠকে জানান, তাদের কাছে খবর আসে প্রতি কেজি পেঁয়াজ রাতারাতি ৯০ টাকা থেকে ১৫০-১৬০ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে। এ খবরে ভোলার পেঁয়াজের বাজারে অভিযানে নামেন তারা। এ সময় ভোক্তাদের জিম্মি করে বেশী দামে পেঁয়াজ বিক্রির দায়ে তিন প্রতিষ্ঠানকে মোট পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এ ছাড়া কয়েকজন ব্যবসায়ী তাদের আসার খবরে পেঁয়াজের দাম কমিয়ে দিলে দাঁড়িয়ে থেকে সেই পেঁয়াজ ১১০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করে দেওয়া হয়।